www.szamin.com


পরীক্ষা কেন্দ্রে গায়ে আগুন দেয়ার বর্ণনা সেই ছাত্রীর মুখে


 স্বদেশ জমিন ডেস্ক: | ৭ এপ্রিল ২০১৯, রবিবার, ১২:১১ | অপরাধ 


ফেনীর সোনাগাজীতে পরীক্ষাকেন্দ্রের ভেতর শনিবার সকালে মাদ্রাসাছাত্রীর (১৮) গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায় দুর্বৃত্তরা। সেই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা ওই ছাত্রী। ফেনী থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার সময় ছাত্রী তার ভাইসহ পরিবারের লোকজনের কাছে নৃশংস ওই ঘটনার বর্ণনা দেয়।

ওই ছাত্রীর বর্ণনায় জানা যায়, শনিবার সকালে সোনাগাজী পৌর এলাকার ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসাকেন্দ্রে তার আরবি প্রথমপত্র পরীক্ষা ছিল। তিনি ওই মাদ্রাসা থেকেই আলিম পরীক্ষা দিচ্ছিলেন।

পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত কক্ষ থেকে ছাদে ডেকে নিয়ে কয়েকজন বোরকা পরা নারী পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যার চেষ্টা করে। মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজউদ্দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগে দায়ের করা মামলা তুলে না নেয়ায় এ কাণ্ড ঘটিয়েছে তার লোকজন।

ওই ছাত্রীর বরাত দিয়ে তার ভাই বলেন, ঢাকায় নিয়ে আসার পথে আমার বোন জানিয়েছে, শনিবার সকালে আরবি প্রথমপত্র পরীক্ষায় অংশ নিতে নিজ পরীক্ষাকেন্দ্রে যায় সে। পরীক্ষাকেন্দ্রের দ্বিতীয় তলার ৮ নম্বর কক্ষে বসার কিছুক্ষণ পর এক ছাত্রী এসে তাকে জানায়, ছাদে তার এক বান্ধবীকে মারধর করা হচ্ছে। এ সময় দ্রুত সে ছাদে যায়। সেখানে গিয়ে দেখে তার বান্ধবী নেই। বোরকা পরা চারজন ছিল। তারা তাকে ধরে জোর করে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ মিথ্যা বলে জবানবন্দি রেকর্ড করতে চায়। তারা তাকে বলে, ‘বল সব মিথ্যা। ২৭ তারিখের যৌন হয়রানি মিথ্যা। এটি বলবি। মামলা তুলে নিবি, তা না হলে তোকে মেরে ফেলব।’

তবে আমার বোন বলেছে, ‘তার মৃত্যু হলেও সে এমন জবানবন্দি দেবে না। এর শেষ দেখবে। আর যেন কোনো ছাত্রী ওই অধ্যক্ষের লালসার শিকার না হয়। এর পর তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়।’

পরে তার চিৎকারে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে সোনাগাজী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরবর্তী সময়ে ফেনী সদর হাসপাতালে পাঠায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠান।

ওই ছাত্রীর ভাই বলেন, আমি আমার বোনের ওপর এমন বর্বরোচিত ঘটনার বিচার চাই। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আকুল আবেদন করছি- তিনি যেন এর বিচারের ব্যবস্থা করেন। এ ছাড়া আমার বোনের চিকিৎসার বিষয়েও যেন তিনি নজর দেন। ওই ছাত্রীর ভাই অভিযোগ করে বলেন, শনিবার সকালে মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক আফসার আহমেদ আমাকে ফোন করে জানতে চান- আমরা বিষয়টি আপসের উদ্যোগ নিয়েছি কিনা। আমি তাকে কোনো সন্তোষজনক জবাব দিইনি। এ থেকেও আমার সন্দেহ হয় ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত।

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একই মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আবছার উদ্দিন ও আহতের সহপাঠী আরিফুল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ। আলামত হিসেবে ঘটনাস্থল থেকে বোরকার পোড়া অংশ, কেরোসিন তেলযুক্ত একটি পলিথিনের পোড়া অংশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

ওই ছাত্রী বর্তমানে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন। তার শরীরের ৭৫ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের আবাসিক সার্জন ডা. পার্থ শংকর পাল। তিনি বলেন, ছাত্রীর শরীরের বেশিরভাগ অংশই পুড়ে যাওয়ায় ওই ছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। তার শ্বাসনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।

এর আগে ১৭ মার্চ ওই ছাত্রীকে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগে ওঠে। পরে এ ঘটনার মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাকে গ্রেফতার করে। এর পর থেকেই শিক্ষার্থীদের একটি অংশ অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেন। অন্যদিকে আরেকটি অংশ তার শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করে।



এ বিভাগের আরও খবর















সম্পাদক- লুৎফুন নাহার রুমা
নির্বাহী সম্পাদক- যারিন তাসনীম ঐশী

সম্পাদক বার্তা বিভাগ- কামরুল ইসলাম
ঠিকানা- ২৩/৩ তোপখানা রোড (চতুর্থ তলা), ঢাকা। ফোন- ০১৭১৫১৮৭৩১৮, ০১৭১১১৮১৮৯৩
Email: szaminnews@gmail.com
  Web: www.szamin.com